আটক মুক্তির আদেশ ৪.পদাধিকার সম্পর্কে ঘােষণা

  ৩. আটক মুক্তির আদেশ ৪.পদাধিকার সম্পর্কে ঘােষণা

১৯৮৮ সালের ৩০ নং আইন বলে সংবিধানের ১০০ অনুচ্ছেদের সংশােধন মহামান্য আদালত কর্তৃক এখতিয়ার বহির্ভুত ও অকার্যকর ঘােষণা প্রশাসনিক জবাবদিহিতা বিচার বিভাগের উজ্জ্বল দৃষ্টাত্ম| বিচার বিভাগের মাধ্যমে প্রশাসনকে জবাবদিহি করার জন্য বিচার বিভাগকে আরও স্বাধীন এবং নির্বাহী বিভাগের নিয়ন্ত্রণমুক্ত করা হয়েছে। প্রশাসনিক জবাবদিহিতা অর্জনের উপায় সরকারের প্রশাসনিক ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার গুরম্নত্ব অনস্বীকার্য| আর এই স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা কীভাবে অর্জন করা যায় সে বিষয়ে সকলেরই সচেতন থাকা উচিত| নিম্নে এই জবাবদিহিতা অর্জনের কয়েকটি বিশেষ উপায় সম্পর্কে আলােচনা করা হলাে:

১.আইনসভার নিকট দায়িত্বশীলতা বা জবাবদিহিতা: শাসন বিভাগকে তাঁদের যাবতীয় কর্মকার জন্য আইনসভার

নিকট জবাবদিহি করতে হয়| যেকোনাে সরকার ব্যবস্থায়

রাজনৈতিক দায়িত্বশীলতা কার্যকর করার ক্সেত্রে আইনসভা অত্যত্ম গুরম্নত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে| বিশেষ করে সংসদীয় গণতন্ত্রে শাসন বিভাগের উপর আইনসভা যথেষ্ট পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ আরােপ করতে পারে|

আইন সভা সাধারণত অনাস্থা প্রস্রাব পাস করে| প্রশ্ন জিজ্ঞেস করে, অতিরিক্ত প্রশান উত্থাপনের মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের প্রস্তাব উত্থাপন করে| বিতর্কে অংশগ্রহণ করে শাসন বিভাগের উপর নিয়ন্ত্রণ চর্চা করে থাকে|

এছাড়াও আইনসভা ন্যায়পাল পদ সৃষ্টির মাধ্যমে শাসন কর্তৃপক্সের উপর নিয়ন্ত্রণ বজায় রাখতে পারে| প্রশাসনিক কর্তৃপড়া যাতে করে আইনগত মতার মধ্যে থেকে

জনস্থার্থে কাজ করে তা দেখাশুনা ও তদারকি করা ন্যায়পালনে অন্যতম কাজ| তাছাড়া বিভিন্ন স্বার্থকামি বা চাপসৃষ্টিকারী গােষ্ঠির (ওহঃবৎবংঃ এঊঢ়ং ড়ৎ চৎবংংত্ব এৎড়ুঢ়ং) শাসনবিভাগের কর্মকারে প্রতি সতর্ক দৃষ্টি রেখে তাদের স্বেচ্ছাচারিতা বােধে সহায়ক ভূমিকা পালন করে| ২.আইনগত দায়িত্বশীলতা: রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও সরকারি কর্মকর্তাদের দায়িত্বশীলতা বা জবাবদিহিতা আইনের মাধ্যমেও অর্জন করা যায়| এঙ্গেত্রে তাঁদেরকে তাঁদের কর্মকারে জন্য আদালতের নিকট দায়ী রাখার বিধান রয়েছে| গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে একটি বিশেষভাবে পালিত হয়|সরকারি কর্মকর্তাদের আইনগত দায়িত্বশীলতা নিশ্চিত করার লক্স্যে আধুনিক রাষ্ট্রে দুই ধরনের ব্যবস্থা অনুসৃত হয়ে থাকে| একটি হলাে সাধারন নাগরিকদের মতাে প্রশাসনিক কর্মকর্তাদেরকে দেশের সাধারণ আদালতে অপরাধের জন্য বিচারের ব্যবস্থা করা| আর অপরটি হচ্ছে সরকারি কর্মকর্তাদেরকে বিশেষ প্রশাসনিক আইনের অধিনে বিশেষ প্রশাসনিক ট্রাইব্যুনালে জবাবদিহি রাখার

ব্যবস্থা করা|

৩. পেশাগত দায়িত্বশীলতা: সরকারি ও প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের আবার পেশাগত দায়ীত্বশীলতাও রয়েছে| তারা

প্রত্যেকেই তাদের স্ব স্ব উর্ধ্বতন কর্মকর্তার নিয়ন্ত্রণাধীন থাকেন| উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ তাদের অধত্মন

কর্মকর্তাদের কর্মকারে উপর নিয়ন্ত্রণ চর্চা করেন এবং নির্দেশ করতে পারেন| উপরােক্ত সরকারি কর্মকর্তাদের দায়িত্বশীলতা ও জবাবদিহিতা অর্জনে গুরম্নত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। গনতান্ত্রিক সরকার ব্যবস্থায় সরকারের জবাবদিহিতা অধিকতর নিশ্চিত করা হয়ে থাকে| গণতান্ত্রিক সরকার

চূড়ান্ত্ম বিচারে জনগণের নিকট জবাবদিহি করতে বাধ্য থাকে| প্রশাসনে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার উপায়

স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা ব্যতীত কার্যকর প্রশাসন ব্যবস্থা গড়ে উঠতে পারে না| রাষ্ট্রের সার্বিক উন্নয়নের লক্স্যে প্রশাসনের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা অতীব জরম্নরি| নিম্নে প্রশাসনে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতকরণের কতিপয় উপায় আলােচনা করা হলাে:

১.স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা সম্পর্কে সুস্পষ্ট ধারণা প্রদান: প্রকৃত পঙ্গে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা কি সে সম্পর্কে প্রশাসকদের মধ্যে সুস্পষ্ট ধারণার সৃষ্টি করতে হবে| স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা আমলাতান্ত্রিক ব্যবস্থাকে উৎকর্ষের চূড়াত্ম পর্যায়ে পৌছে দিতে পারে এ সত্য অনুভব করতে পারলে এ বিষয়ে আমলাতত্ম কোনাে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করবে না| স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতহার স্বরূপ এবং এর পরিধি সম্পর্কে প্রশাসন যন্ত্রকে সঠিকভাবে অবহিত করতে হবে|

২.প্রশিঙ্গণ প্রদান: পেশাগত দজ্ঞতা অর্জনের জন্য

প্রশিণের বিকল্প নেই| তাই প্রশিণ প্রদানের মাধ্যমে আমলাদের মধ্যে পেশাদারিত্ব সৃষিটি করতে পারে| সততা, নৈতিকতা, দায়িত্বশীলতা, কোনাে উচ্চ শ্রেণির পেশাদারী সংগঠনের প্রধান শর্ত এই বােধ জাগ্রতকরণের মাধ্যমে। প্রশাসকদের কাজের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা যেতে পারে|

৩. মেধা ও দঙ্গতার ভিত্তিতে নিয়ােগ: প্রশাসনে যােগ্য ও

মেধাবী কর্মকর্তাদের নিয়ােগ দানের মাধ্যমে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা যায়| সঠিকভাবে বাছাই এর মাধ্যমে মেধাভিত্তিক ও দড়াতাভিত্তিক নিয়ােগ নিশ্চিতকরণের দ্বারা প্রশাসনকে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা সম্পন্ন প্রতিষ্ঠানে পরিণত করা সম্ভব|| ৪.যুগােপযােগী আইনপ্রণয়ন: প্রশাসনে স্বচ্ছতা ও

জবাবদিহিতা নিশ্চিতকরণের লক্স্যে যুগােপযােগী আইন প্রণয়ন করা প্রয়ােজন| পরিবেশ আধুনিক আইনের প্রণয়ন আমলাতন্ত্রকে নিয়ন্ত্রণ করতে সঙ্গম হবে| তাছাড়া নতুন আইন আমলাতন্ত্রকে নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে প্রাচীন ঐপনিবেশিক মনােভাব দূর করে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার নিশ্চিয়তা বিধান করতে পারে|

৫.বিচার বিভাগের স্বাধীনতা: বিচার বিভাগের স্বাধীনতা নিশ্চিতকরণের মাধ্যমে প্রশাসনে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা প্রতিষ্ঠা করা যায়| পৃথিবীর অনেক রাষ্ট্রেই বিচার বিভাগেরমাধ্যমে আমলাতন্ত্রকে নিয়ন্ত্রণ করা হয়| সাধারণ বিচারব্যবস্থার আওতায় অথবা বিশেষ বিচারের আওতায় আমলাতন্ত্রের কোনাে অন্যায় বা দুর্নীতির বিচারও শাত্মি প্রদানের মাধ্যমে আমলাতন্ত্রের জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা সম্ভব|

৬. সুস্থ রাজনৈতিক ব্যবস্থা: দেশে সুস্থ রাজনৈতিক

প্রক্রিয়ার অনুপস্থিতি প্রশাসনিক জটিলতা ও অস্বচ্ছতা বৃদ্ধি করবে| জবাবদিহিতামূলক রাজনীতি প্রতিষ্ঠিত থাকলে, সৎ, নিষ্ঠাবান রাজনীতিকের স্বচ্ছ রাজনৈতিক কার্মকারে প্রক্রিয়া চালু থাকলে আমলাতান্ত্রিক প্রশাসন স্বচ্ছতা ও

জবাবদিহিমূলক হতে বাধ্য| ৭. নৈতিকতার প্রসার: প্রশাসনে কর্মরত প্রতিটি ত্মরের কর্মচারীদের মধ্যে নৈতিকতার বিকাশ ঘটাতে হবে| তারা সমগ্র জাতির সেবক এবং জাতীয় স্বার্থের তারা নিবেদিত, এই নৈতিক চিত্মা প্রশাসনে জবাবদিহিতাকে সুনিশ্চিত

করতে পারে|

৮.

কর্মবিবরণী প্রকাশ: প্রশাসনের সকল ত্মরের

কর্মকর্তা/ কর্মচারীদের কর্ম বিবরণী (ঔড়ন ফবংপত্রঢ়ঃরড়হ) সুনির্দিষ্টভাবে প্রকাশ করতে হবে| সুনির্দিষ্ট ভাবে প্রকাশ করতে হবে| সুনির্দিষ্ট কর্ম বিবরণী সংশিস্নষ্ট কর্মকর্তাকে তার উপর অর্পিত দায়িত্ব পালনে

সচেতন করে তুলবে| তাই প্রতিটি কাজের জন্য সুনির্দিষ্ট কর্মসম্পাদন প্রণালি, পদ্ধতি, পক্রিয়া নির্ধারণ করে তা তার উপকার ভােগীর কাছে সুস্পষ্টভাবে প্রকাশ করতে হবে|

৯.গণমাধ্যমের স্বাধীনতা স্বচ্ছতা

ও জবাবদিহিতা

নিশ্চিতকরণে গণমাধ্যমে স্বাধীনতা অপরিহার্য| প্রমাসনে তথ্য উপাত্ত সংগ্রহের ব্যাপারে প্রশাসনিক প্রতিষ্ঠানে সংবাদ মাধ্যমে ও গণমাধ্যমের প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করতে হবে|

বেতার, টেলিভিশন বা খবরের কাগজে গুরম্নত্বপূর্ণ জনস্বার্থে সংশিস্নষ্ট প্রশাসনিক কর্মকা- প্রাঞ্জল ভাষায় প্রকাশ ও প্রচার

Leave a Comment